বিয়ের লেহেঙ্গার ভোলবদল, জমকালো রং ছেড়ে লাল-সাদায় মজেছেন হবু কনেরা

বিয়ের লেহেঙ্গার ভোলবদল, জমকালো রং ছেড়ে লাল-সাদায় মজেছেন হবু কনেরা

বাঙালির বিয়ে মানেই শাড়ি। তবে বেনারসির পাট চুকিয়ে এখন লেহেঙ্গার দিকে ঝুঁকছে হবু কনেরা। বিয়ের দিন শাড়ি পরলেও রিসেপশনে লেহেঙ্গা এখন অনেকেরই প্রথম পছন্দ। প্রথমদিকে অনেকে লেহেঙ্গায় ঝলমলে কাজ পছন্দ করলেও এখন হালকা সাজেই মন দিয়েছেন হবু বধূরা। তাই তালিকায় এসেছে সাদার মতো রংও। অনেকেই এখন রিসেপশনের জন্য লাল-সাদা লেহেঙ্গা পছন্দ করছেন।

লাল রং বিয়ের রং। বাঙালি বিয়ে লাল ছাড়া অসম্পূর্ণ। বিয়ের শাড়ি অনেকে লাল পরেন। নিদেনপক্ষে লালেরই কোনও শেড। লাল রঙের মধ্যে একটা আলাদা উজ্জ্বলতা আছে। তাই কনেদেরও লাল রং মানায় ভাল। এমন একটি উজ্জ্বল রঙের সঙ্গে হালকা রংই মানানসই। সবুজ বা হলুদ অবশ্য খারাপ লাগে না। কিন্তু সাদা বা ক্রিম রঙের সঙ্গে লালের জুটি জমে ভাল। তাই বেশিরভাগ মেয়েরাই লাল-সাদা লেহেঙ্গার দিকে ঝুঁকছে। তাই সব্যসাচী থেকে শুরু করে অনেক ফ্যাশন ডিজাইনাররা তাঁদের কালেকশনে এই লাল-সাদা কম্বিনেশনের লেহেঙ্গা রাখছেন।

এই রঙের আরও একটি পজেটিভ পয়েন্ট আছে। তা হল রিসেপশনের পর আলমারিতে বন্দি অবস্থায় পড়ে থাকে না এই পোশাক। আত্মীয় বা বন্ধুর বিয়েতেও অনায়াসে ব্যবহার করা যায় লাল-সাদা লেহেঙ্গা। কারণ এতে রঙের প্রাচূর্য কম থাকায় অন্য কোনও অনুষ্ঠানে পরলে অতিরিক্ত সাজ বলে মনে হয় না।

তবে এই ধরনের লেহেঙ্গার সঙ্গে জুয়েলারি পরতে হবে মানানসই। এই কালার কম্বিনেশনের পোশাকের সঙ্গে সাধারণত সোনালি কারুকাজ করা থাকে। ফলে এর সঙ্গে সোনা বা সোনালি অলংকার মানায় ভাল। তবে কুন্দনের অলংকারও এর সঙ্গে পরা যায়। চোকার হার, ঝুমকো কানের দুল ও টিকলি যদি লেহেঙ্গার সঙ্গে পরা যায় তবে সম্পূর্ণ হয় সাজ। সঙ্গে চাই খোঁপা। ইচ্ছা হলে খোঁপা সাজাতেই পারেন ফুল দিয়ে।

CATEGORIES
Share This

COMMENTS

Wordpress (0)
Disqus (0 )